Sun Mercury Venus Ve Ves
বিশেষ খবর
লক্ষ্মীপুরে মডেল থানা পুলিশের আলোচনা সভা ও আনন্দ উদযাপন  লক্ষ্মীপুরে বিএনপি নেতা ইউপি চেয়ারম্যান কামরুজ্জামান সোহেলের সংবাদ সম্মেলন  লক্ষ্মীপুর মডেল থানায় ওসি (তদন্ত) শিপন বড়ুয়ার যোগদান  ঘর মেরামতে ঢেউটিন উপহার পেলেন লক্ষ্মীপুরের দৃষ্টিপ্রতিবন্ধী জসিম  রায়পুর প্রেস ক্লাবের নির্বাচনে সভাপতি মাহবুবুল আলম মিন্টু ও সম্পাদক আনোয়ার হোসেন নির্বাচিত 

সম্পাদকীয়

লক্ষ্মীপুরের উপকূলীয় অঞ্চলের সবুজ বেষ্টনী রক্ষায় মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর সুদৃষ্টি কামনা


লক্ষ্মীপুরের উপকূলীয় অঞ্চলে ঝড়-ঝঞ্ঝা ও জলোচ্ছ্বাস থেকে রক্ষা পাওয়া এবং পরিত্রাণের একমাত্র উপায় হচ্ছে, উপকূলীয় এলাকায় বনায়নের মাধ্যমে ‘সবুজ বেষ্টনী’ গড়ে তোলা। যত মজবুত করে বেষ্টনী গড়ে তোলা হবে, প্রাকৃতিক দুর্যোগ মোকাবেলাও তত সহজ হবে। বিশেষজ্ঞরা বরাবর এর উপরই জোর দিয়ে আসছেন। উপকূলে সবুজায়নের দায়িত্ব বন ও পরিবেশ মন্ত্রণালয়ের হলেও এ কাজটি যথাযথভাবে পালন হচ্ছে না। এ কারণে উপকূলজুড়ে যতটুকু সবুজ বেষ্টনী রয়েছে, তা বনখোকো ও ভূমিদস্যুরা সাবাড় করে দিচ্ছে।
ঘূর্ণিঝড়, জলোচ্ছ্বাস এবং জলবায়ুর বিরূপ পরিবর্তন মোকাবেলায় উপকূলীয় বনাঞ্চল ও সবুজ বেষ্টনীর অপরিহার্যতা অনস্বীকার্য। প্রাকৃতিক দুর্যোগের রক্ষাবুহ্য হয়ে থাকা বনাঞ্চল ধ্বংস করে পুরো উপকূলকে যেভাবে অরক্ষিত করা হচ্ছে, তা কোনোভাবেই মেনে নেয়া যায় না। চোখের সামনে এমন ভয়াবহ অপকর্ম ঘটলেও কর্তৃপক্ষ কোনো ব্যবস্থা নিচ্ছে না। অথচ উপকূলজুড়ে বনায়ন সরকারের অগ্রাধিকারভিত্তিক কর্মসূচি। এ ব্যাপারে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সুদৃষ্টি দেয়া একান্ত প্রয়োজন।

লক্ষ্মীপুর বিসিক শিল্পনগরীকে বেহাল দশা থেকে রক্ষায় দ্রুত পদক্ষেপ গ্রহণের প্রত্যাশা শিল্পদ্যোক্তাদের


মেঘনা-বিধৌত লক্ষ্মীপুরে বাণিজ্যের লক্ষ্মী হয়ে উঠেছে নারিকেল। প্রতিবছর নারিকেলের মৌসুমে জেলার দুই হাজার ৬৫০ হেক্টর জমিতে প্রায় সাড়ে ৫ কোটি নারিকেল উৎপাদিত হয়। পাইকারি দরে প্রতিটি ২০ টাকা করে এসব নারিকেলের দাম প্রায় ১০০ কোটি টাকা। লক্ষ্মীপুরের নারিকেল সারাদেশের চাহিদা মেটাচ্ছে। প্রতিবছর নারিকেল চাষীরা প্রায় ১০ কোটি টাকার ছোবড়া বিক্রি করছেন। এবছর নারিকেলের বাম্পার ফলন অতীতের সব রেকর্ড ভঙ্গ করেছে।
লক্ষ্মীপুরে স্থানীয়ভাবে নারিকেলভিত্তিক শিল্প-কারখানা না থাকায় নায্যমূল্য পাচ্ছেন না চাষিরা। অসাধু ব্যবসায়ীরা সিন্ডিকেট করে কম দামে নারিকেল কিনছেন বলে অভিযোগ রয়েছে, যা নতুন করে নারিকেল চাষে কৃষকদের নিরুৎসাহিত করছে। এভাবে চলতে থাকলে ভবিষ্যতে লক্ষ্মীপুর জেলায় নারিকেলের উৎপাদন আশঙ্কাজনকহারে কমবে বলেই প্রতীয়মান। এজন্য লক্ষ্মীপুর জেলায় ব্যাপকভাবে নারিকেলভিত্তিক বিভিন্ন ধরনের শিল্প-কারখানা গড়ে ওঠা প্রয়োজন। এতে এলাকার বিপুলসংখ্যক লোকের কর্মসংস্থান হবে। পাশাপাশি নারিকেল চাষিরাও ন্যায্যমূল্য পাবেন।