Sun Mercury Venus Ve Ves
বিশেষ খবর
নাট্যযোদ্ধা সম্মাননা পেলেন নোয়াখালী রত্ন গোলাম কুদ্দুছ  আসামের বন্যায় নোয়াখালীর ছবি!  রায়পুরে দুই নারীর লাশ উদ্ধার  লক্ষ্মীপুরের দালাল বাজারে ‘মা’ সমাবেশ  লক্ষ্মীপুরে পুলিশের সন্ত্রাস ও জঙ্গিবাদ বিরোধী সভা 

নোয়াখালীর কৃতী সন্তান ডাঃ সিরাজুল ইসলাম সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত

ডাঃ সিরাজুল ইসলাম মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল ও সুমনা হাসপাতালের মালিক ডাঃ সিরাজুল ইসলামসহ ৩ জন এক মর্মান্তিক সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত হয়েছেন (ইন্নালিল্লাহে...)। ১৩ সেপ্টেম্বর সকাল আটটায় ঢাকা-সিলেট মহাসড়কের নরসিংদী সদর উপজেলার রাইনাদি পুলিশ চেকপোস্টের কাছে ট্রাক ও প্রাডো জিপের মুখোমুখি সংঘর্ষে এ দুর্ঘটনা ঘটে। উদ্ধার করে ঢাকায় নেয়ার পথে তিনজনের মৃত্যু হয়। ডাঃ সিরাজুল ইসলামের বয়স হয়েছিল ৬২ বছর। তিনি প্রাডো জিপে করে ঢাকা থেকে ব্রাহ্মণবাড়ীয়া যাচ্ছিলেন। ১৩ সেপ্টেম্বর রাজধানীর তিন জায়গায় মরহুমের জানাজা অনুষ্ঠিত হয়। ১৪ সেপ্টেম্বর নোয়াখালীর চাটখিল উপজেলার রামনারায়ণপুর ইউনিয়নের বৌমাতলি গ্রামে পারিবারিক কবরস্থানে মা-বাবার পাশে তাঁকে দাফন করা হয়।
সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত অন্য দু’জন হলেন ডাঃ সিরাজুল ইসলামের মেয়ের শ্বশুর আব্দুল খালেক (৬২) ও গাড়িচালক অন্তু (৩৫)। মাধবদী পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের ইনচার্জ এসআই শাহ আলম জানান, ঢাকা থেকে মেয়ের শ্বশুরকে নিয়ে প্রাডো গাড়িতে (ঢাকা মেট্রো ঘ-১৩-২৭১৮) করে ব্রাহ্মণবাড়ীয়া যাচ্ছিলেন ডাঃ সিরাজুল ইসলাম। রাইনাদি এলাকায় পুলিশ চেকপোস্টের কাছেই বিপরীত দিক থেকে আসা ট্রাকের সঙ্গে সংঘর্ষ হয়। এতে গাড়িটি দুমড়ে-মুচড়ে যায় এবং তিন আরোহী গুরুতর আহত হন। উদ্ধার করে ঢাকায় নেয়ার পথে তিনজনের মৃত্যু হয়। দুর্ঘটনার পর ট্রাকটি আটক করা হলেও চালক পালিয়ে গেছে। এ বিষয়ে নরসিংদী সদর মডেল থানায় মামলা দায়ের হয়েছে বলে জানান তিনি।
মরহুমের পারিবারিক সূত্র জানায়, ডাঃ সিরাজুল ইসলামের জানাজা ১৩ সেপ্টেম্বর রাজধানীর মগবাজার মালিবাগ মসজিদে বাদ আসর, সুমনা হাসপাতালে বাদ মাগরিব এবং কেরানীগঞ্জে বাদ এশা অনুষ্ঠিত হয়। ১৪ সেপ্টেম্বর রাজধানীর স্যার সলিমুল্লাহ মেডিকেল কলেজে সকাল দশটায় জানাজা শেষে মরহুমের লাশ নোয়াখালীর নিজ গ্রামে নিয়ে যাওয়া হয়। সূত্রটি আরও জানায়, ডাঃ সিরাজুল ইসলামের সহধর্মিণী, দু’ মেয়ে ও দু’ ছেলে রয়েছে। তাঁদের মধ্যে এক ছেলে ও এক মেয়ে চিকিৎসক। রাজধানীর স্যার সলিমুল্লাহ মেডিকেল কলেজের প্রথম ব্যাচের শিক্ষার্থী ছিলেন ডাঃ সিরাজুল ইসলাম। ছাত্রাবস্থায় তিনি ছাত্রলীগের রাজনীতির সঙ্গে সম্পৃক্ত ছিলেন। জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সঙ্গেও তাঁর ছিল গভীর সম্পর্ক। সরকারি চাকরি ছেড়ে তিনি চিকিৎসা প্রতিষ্ঠান স্থাপনসহ বিভিন্ন সেবামূলক কর্মে মনোযোগ দেন। আশির দশকে রাজধানীর পুরান ঢাকায় তিনি প্রথমে প্রতিষ্ঠা করেন সুমনা হাসপাতাল। এরপর একে একে গড়ে তুলেন সুমনা ইনস্টিটিউট অব মেডিকেল টেকনোলজি, সুমনা মেডিকেল এ্যাসিস্টেন্ট ট্রেনিং স্কুল, সুমনা প্রাইভেট লিঃ এবং সুমনা বিল্ডার্স। এভাবে ২০১১ সালে রাজধানীর মগবাজারের মালিবাগ এলাকায় গড়ে তোলেন ৫০০ বেডের অত্যাধুনিক ‘ডাঃ সিরাজুল ইসলাম মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতাল’। এছাড়া তিনি নোয়াখালীতে এতিমখানা, মাদ্রাসা, কবরস্থানসহ বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান প্রতিষ্ঠা করে গেছেন।