Sun Mercury Venus Ve Ves
বিশেষ খবর
সরকারের সচিব হলেন লক্ষ্মীপুরের সুসন্তান মোঃ হাবিবুর রহমান  অতিরিক্ত আইজিপি হলেন লক্ষ্মীপুরের কৃতী সন্তান মোহাম্মদ ইব্রাহীম ফাতেমী  লক্ষ্মীপুরে বঙ্গবন্ধু জাতীয় যুব দিবস পালিত  সকলের সহযোগিতা নিয়ে কাজ করতে চাই -মোহাম্মদ মাসুম, ইউএনও, লক্ষ্মীপুর সদর উপজেলা  ফেনী জেলা পরিষদ শিশু পার্ক থেকে বিমুখ স্থানীয়রা 

ফেনীর ঐতিহ্য ও জনপ্রিয় মিষ্টান্ন খন্ডলের মিষ্টি

খন্ডলের মিষ্টি বাংলাদেশের ফেনী জেলার খন্ডল নামক স্থানে উৎপন্ন একটি মিষ্টি, যা ফেনী অঞ্চলে বিখ্যাত এবং খুবই জনপ্রিয়। এটি মূলত রসগোল্লার একটি ভিন্ন সংস্করণ। এ মিষ্টিটির বিশেষত্ব হলো বাংলাদেশের অন্যান্য সব মিষ্টি ঠান্ডা বা স্বাভাবিক তাপমাত্রায় খাওয়া হলেও খন্ডলের মিষ্টি ঠান্ডা খাওয়ার পাশাপাশি গরম গরমও খাওয়া হয়।

ইতিহাস
প্রায় গত ৫০ বছর ধরে ঐতিহ্য ধরে রেখে তৈরি হচ্ছে পরশুরামের খন্ডলের মিষ্টি। অতীত ঘেঁটে জানা যায়, স্বাধীনতার পরপরই স্থানীয় কবির আহাম্মদ পাটোয়ারী বক্স মাহমুদ ইউনিয়নের খন্ডল হাইস্কুলের পাশে ছোট একটি মিষ্টির দোকান দেন। ওই দোকানে কারিগর হিসেবে কাজ নেন কুমিল্লার যোগল চন্দ্র দাস নামে এক ব্যক্তি। অল্পদিনের মধ্যেই তার তৈরি সুস্বাদু মিষ্টির খ্যাতি ছড়িয়ে পড়ে আশপাশের এলাকায়। একসময় এলাকার নামেই তা পরিচিত হয়ে ওঠে খন্ডলের মিষ্টি নামে।

প্রস্তুত প্রণালী
খন্ডলের মিষ্টি তৈরিতে গরুর খাঁটি দুধ যা থেকে ছানা তৈরি করা হয়, সামান্য ময়দা ও চিনি ব্যবহার করা হয়। মিষ্টির সঙ্গে অন্য কোনো রাসায়নিক উপাদান মেশানো হয় না। দুধের সঙ্গে সামান্য ময়দা ব্যবহার করা হয় ছানাকে গাঢ় করার জন্য। প্রথমে দুধ ও ময়দার মিশ্রণ থেকে ছানা তৈরি করা হয়। এরপর ছানা থেকে তৈরি করা হয় মন্ড, মন্ড থেকে হয় গোলাকার মিষ্টি। এরপর সে মিষ্টি তেলে ভেজে তা চিনি দিয়ে তৈরি সিরাপে ডুবিয়ে রাখা হয়।

এক নজরে খন্ডলের মিষ্টি
অন্যান্য নামঃ খন্ডলের রসগোল্লা
ধরনঃ নাস্তা
প্রকারঃ মিষ্টান্ন
উৎপত্তিস্থলঃ খন্ডল, ফেনী, বাংলাদেশ
অঞ্চল বা রাজ্যঃ ফেনী জেলা
সংশ্লিষ্ট জাতীয় রন্ধনশৈলীঃ বাংলাদেশ
প্রস্তুতকারীঃ যোগল চন্দ্র দাস
পরিবেশনঃ গরম অথবা ঠান্ডা
প্রধান উপকরণঃ ছানা, ময়দা, চিনির সিরাপ
অনুরূপ খাদ্যঃ রসগোল্লা