Sun Mercury Venus Ve Ves
বিশেষ খবর
সরকারের সচিব হলেন লক্ষ্মীপুরের সুসন্তান মোঃ হাবিবুর রহমান  অতিরিক্ত আইজিপি হলেন লক্ষ্মীপুরের কৃতী সন্তান মোহাম্মদ ইব্রাহীম ফাতেমী  লক্ষ্মীপুরে বঙ্গবন্ধু জাতীয় যুব দিবস পালিত  সকলের সহযোগিতা নিয়ে কাজ করতে চাই -মোহাম্মদ মাসুম, ইউএনও, লক্ষ্মীপুর সদর উপজেলা  ফেনী জেলা পরিষদ শিশু পার্ক থেকে বিমুখ স্থানীয়রা 

অপসাংবাদিকতা রোধে সাংবাদিকদের ডাটাবেজ তৈরি করা হবে -বিচারপতি মমতাজ

বাংলাদেশ প্রেস কাউন্সিলের চেয়ারম্যান বিচারপতি মোহাম্মদ মমতাজ উদ্দিন আহমেদ বলেছেন, সাংবাদিকদের ডাটাবেজ তৈরি করা হবে। এতে তথাকথিত সাংবাদিক আর থাকবে না। প্রকৃত সাংবাদিকরাই মাঠে থাকবে। ডাটাবেজ তৈরি বাস্তবায়ন হলেই অপসাংবাদিকতা বন্ধ হবে। সম্প্রতি লক্ষ্মীপুরে স্থানীয় সাংবাদিকদের সাথে ‘মুক্তিযুদ্ধের অঙ্গীকার, হলুদ সাংবাদিকতা পরিহার’ শীর্ষক মতবিনিময় সভা ও বই বিতরণ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এ মন্তব্য করেন তিনি। তিনি বলেন, অপসাংবাদিকতা করে নিজেরা নিজেদের অস্তিত্ব বিলীন করে দিচ্ছেন। যারা মূল ধারায় নেই, তারা কচুরিপানার মতো ভেসে যাবে। তিনি আরও বলেন, ‘বঙ্গবন্ধু বলেছেন- আপনারা (সাংবাদিকরা) জ্ঞানী মানুষ, আপনাদের নীতি থাকা দরকার।’ বঙ্গবন্ধু সাংবাদিকতা করেছেন। তিনি আমাদের যে রাষ্ট্র দিয়ে গেলেন, সেটাতে আমরা সবাই সমন্বয় করে বাঁচতে চাই। আপনারা রাষ্ট্রকে সাহায্য করছেন। এ পেশার মান রক্ষা করা আপনাদের দায়িত্ব, কাউন্সিল একা পারবে না। অবাধ তথ্য প্রবাহের জন্য সরকার ৪৪টি টেলিভিশন চ্যালেন এবং অনেকগুলো প্রিন্ট মিডিয়ার অনুমোদন দিয়েছে।

ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের বিষয়ে তিনি বলেন, ডিজিটাল সিকিউরিটি আইনের মিসইউজ (অপব্যবহার) হবে না। কাউন্সিলের পক্ষ থেকে তথ্যমন্ত্রীর কাছে যাবো, কোথাও কোনো বিষয় থাকলে সেটা নিয়ে আলোচনা করবো। এ আইন দেশের জন্য করা হয়েছে। নির্দিষ্ট কোনো গোষ্ঠির জন্য করা হয়নি। আমরা নেত্রীর কাছে যাবো, যেন আইনের মিসইউজ না হয়। কোনো ব্যক্তি হয়তো নিজের স্বার্থে এ আইন ব্যবহার করছে।

সংবাদ তৈরি এবং সাংবাদিকতা নীতিমালা বিষয়ে বিচারপতি মমতাজ উদ্দিন বলেন, আপনি আগে আপনার নিজের সম্পর্কে জানুন। পরিবার, রাষ্ট্র এবং আইন সম্পর্কে জানুন। তারপর লিখুন। আপনাকে সুনির্দিষ্টভাবে যাচাই-বাছাই করে প্রতিবেদন করতে হবে। তিনি মুক্তিযুদ্ধ, বঙ্গবন্ধুর জীবনী এবং গণমাধ্যম বিষয়ক বই পড়ার জন্য সাংবাদকর্মীদের প্রতি আহ্বান জানান।

বাংলাদেশ প্রেস কাউন্সিলের আয়োজনে এবং জেলা প্রশাসনের সহযোগিতায় জেলা কালেক্টরেট ভবনের মুক্ত মঞ্চে আয়োজিত আলোচনা সভা এবং বঙ্গবন্ধু, মুক্তিযুদ্ধ ও গণমাধ্যম বিষয়ক বই বিতরণ অনুষ্ঠানের সভাপতিত্ব করেন জেলা প্রশাসক অঞ্জন চন্দ্র পাল। এতে স্বাগত বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ প্রেস কাউন্সিলের যুগ্মসচিব মোঃ শাহ আলম, বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন ভারপ্রাপ্ত পুলিশ সুপার রিয়াজুল কবির, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক সফিউজ্জামান ভূঁইয়া, প্রেসক্লাবের সভাপতি হোসাইন আহম্মদ হেলাল প্রমুখ। প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক আবদুল মালেকের সঞ্চালনায় শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন প্রেসক্লাবের সহ সাধারণ সম্পাদক সাইফুল ইসলাম স্বপন, সাবেক সাধারণ সম্পাদক মোঃ কামাল হোসেন, মোঃ কাউসার, সাইদুল ইসলাম পাবেল, আজিজুল হক, গাজী গিয়াস উদ্দিন প্রমুখ। এতে আরও উপস্থিত ছিলেন জেলা তথ্য কর্মকর্তা মনির হোসেন, জেলায় কর্মরত ইলেট্রনিক্স ও প্রিন্ট মিডিয়ায় কর্মরত সাংবাদিকবৃন্দ।

আলোচনা সভায় জেলার সিনিয়র সাংবাদিকরা অপসাংবাদিকতা বন্ধে কার্যকর ব্যবস্থা নিতে এবং প্রকৃত সাংবাদিকদের সুরক্ষা দিতে প্রেস কাউন্সিলের চেয়ারম্যানের প্রতি অনুরোধ জানান।