Sun Mercury Venus Ve Ves
বিশেষ খবর
লক্ষ্মীপুরে মডেল থানা পুলিশের আলোচনা সভা ও আনন্দ উদযাপন  লক্ষ্মীপুরে বিএনপি নেতা ইউপি চেয়ারম্যান কামরুজ্জামান সোহেলের সংবাদ সম্মেলন  লক্ষ্মীপুর মডেল থানায় ওসি (তদন্ত) শিপন বড়ুয়ার যোগদান  ঘর মেরামতে ঢেউটিন উপহার পেলেন লক্ষ্মীপুরের দৃষ্টিপ্রতিবন্ধী জসিম  রায়পুর প্রেস ক্লাবের নির্বাচনে সভাপতি মাহবুবুল আলম মিন্টু ও সম্পাদক আনোয়ার হোসেন নির্বাচিত 

চর বাদামে তিন দখলদারের কব্জায় সরকারের দু’কোটি টাকার সম্পত্তি!

লক্ষ্মীপুরের রামগতি উপজেলার চরবাদাম ইউনিয়নের পুর্ব চরসীতা মৌজার ৮০২০ নং দাগের সরকারের ১নং খাস খতিয়ানের প্রায় ২৪ একর ৪৮ শতক জমি দখল করে মাছের প্রজেক্ট তৈরি করেন স্থানীয় এক সাবেক ইউপি সদস্য ও কয়েকজন ভূমিদস্যু।

এতে ঐ এলাকার কয়েক হাজার হেক্টর জমির পানি নিষ্কাশনের পথ বন্ধ হয়ে যায়। সরকারি জমি দখল করে মাছের প্রজেক্ট তৈরি করে প্রভাবশালী-ভূমিদস্যুরা। বিশাল বিশাল মাছের প্রজেক্ট তৈরি করেছেন তারা। পানি নিষ্কাশনের কালভার্ট ও সরকারি খাল বন্ধ করে মাছ চাষ করা হচ্ছে এই সব খাস জমিতে। ফলে ওই বিলের প্রায় ৫ শতাধিক কৃষকের শত শত বিঘা ফসলি জমি অনাবাদি হয়ে পড়েছে। তিন ভূমিদস্যুর কব্জায় সরকারের ২ কোটি টাকার সম্পত্তি। উপজেলা প্রশাসনের নেই কোনো নজরদারি।

রামগতিতে ভয়াবহ জলাবদ্ধতার মূল কারণ হিসেবে খাল, নদ-নদী দখল করে মাছের ঘের করাকে চিহ্নিত করছেন উপজেলা প্রশাসন। সরকারি অসাধু গুটিকয়েক কর্মকর্তা-কর্মচারীকে ম্যানেজ করেই এই সব খাস জমি দখল করে মাছের প্রজেক্ট করেন তারা। এতে সরকার হারাচ্ছে বিপুল পরিমাণ রাজস্ব। অন্যদিকে ভূমিহীন নদী ভাঙা লোকজন জায়গার অভাবে খোলা আকাশের নিচে চরম মানবেতর জীবনযাপন করছে। চরবাদামের ২ কোটি টাকার এই খাস জমি ৩ জন প্রভাবশালী ভূমিদস্যু দখল করে রাখলেও রামগতি উপজেলা নির্বাহী অফিসার, এসিল্যান্ড ও তহসিলদার দেখেও যেন না দেখার অবস্থায় রয়েছেন। ‘সরকার কা মাল দরিয়া মে ডাল দে’ এমন অবস্থা রামগতির চরবাদাম ইউনিয়নের সরকারি খাস জমিগুলোর অবস্থা। কর্মকর্তাদের সঠিক তদারকি ও নানা অবহেলার কারণে শত শত একর সরকারি খাস জমি অযতেœ অবহেলায় পড়ে আছে। ভূমি অফিসের কর্মকর্তারা অফিসে বসে নিয়মিত ঠিকই বেতন তুলছেন। কিন্তু সরকারি সম্পদ রক্ষায় নেই তাদের কোনো প্রকার নজরদারি। কে শুনে কার কথা। অযতœ-অবহেলা আর উদাসীনতায় সরকারি সম্পদ দখল করে খাচ্ছে কতিপয় ভূমিদস্যুরা। স্থানীয়রা জানায়, রামগতি উপজেলার পূর্ব চরসীতা মৌজার ৮০২০ নং দাগের সিডিএসপি কলোনি সংলগ্ন স্থানীয় চরবাদাম ইউনিয়নের ৬নং ওয়ার্ডের সাবেক মেম্বার খুরশিদ, শাহাদাত মাঝি, আমিনুল হক ও ফিরোজ ভূইয়া নামের তিনজন ভূমিদস্যু সরকারকে রাজস্ব ফাঁকি দিয়ে ২ কোটি টাকা মূল্যের প্রায় ২৪ একর ৪৮ শতক জমিতে ৪টি বিশাল মাছের প্রজেক্ট তৈরি করে রেখেছেন। অথচ এলাকার অসহায় গরীব মানুষ চরবাদাম ইউনিয়নের ভূমি (তহসিল) অফিসে খাসজমি বন্দোবস্ত নেয়ার জন্য গেলে তহসিলদার খাস জমি নেই জানিয়ে বলেন, চরবাদাম এলাকায় কোনো খাস জমি নেই। খাস জমি পেতে হলে চরগজারিয়াতে যাও এমন হুমকিতে গরীব ও নিরীহ মানুষ খাস জমি নিতে পারেনি। চরবাদাম এলাকায় তিন ভূমিদস্যুর কব্জায় রয়েছে ২ কোটি টাকা মূল্যের ২৪ একর ৪৮ শতক খাস জমি।

সরকারি খাস জমি থাকলেও তিনি তা দিচ্ছেন না, এমন অভিযোগ করেছেন একাধিক কৃষক। ঐ এলাকার কৃষক আমিনুর রহমান, আব্দুস সাত্তার মৃধা, আবুল শেখ, সিরাজুল ইসলাম ও শেখ রেজাউল ইসলাম বলেন মূলত এই জমিগুলো সম্পূর্ণ খাস। স্থানীয় তহসিলদারকে ম্যানেজ করেই এরা মাছের প্রজেক্ট তৈরি করেন। সরকারকে কোনো প্রকার রাজস্ব দিচ্ছে না তারা। গরিব-অসহায় মানুষের মাঝে বন্দোবস্ত দিলেও তারা উপকৃত হতো। এই সব ভূমিদস্যুরা মাছের প্রজেক্ট করে পানি আটকে দেয়ায় ফসলও করতে পারছেন না শত শত কৃষক। এ বিষয়ে অভিযুক্ত খুরশিদ মেম্বারের ফোনে যোগাযোগ করা হলে তার ছেলে সাইফুদ্দীন জানান, এই জমির কিছু অংশ আমাদের রেকর্ডি সম্পত্তি। বাকিগুলো খাস, সরকার বন্দোবস্ত দিলে আমরা বন্দোবস্ত নিতে রাজি।

চরবাদাম ইউনিয়নের সহকারী ভূমি কর্মকর্তা মাহে আলম বলেন, এই জমিগুলো খাল শ্রেনীর হয়। তবে খাস খতিয়ানভুক্ত। অচিরেই সরকারের এই জমি ভূমিদস্যুদের কব্জা থেকে দখলমুক্ত করতে অভিযান চালানো হবে। চরবাদাম ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান শাখাওয়াত হোসেন জসিম বলেন, ঐ জমিগুলো সম্পূর্ণ খাস। তহসিলদার কীভাবে এতোগুলা জমি এদেরকে দখল দিলে তা আমার বুঝে আসে না। রামগতি উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) সুচিত্র রঞ্জন দাস বলেন, বিষয়টি খতিয়ে দেখে ঐ জমি দখলমুক্ত করে ভূমিহীনদের মাঝে বন্টন করে দেয়া হবে। রামগতি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ আব্দুল মোমিন জানান, বিষয়টি আমার জানা নেই। খোঁজখবর নিয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়ার আশ্বাস দেন তিনি।