Sun Mercury Venus Ve Ves
বিশেষ খবর
সরকারের সচিব হলেন লক্ষ্মীপুরের সুসন্তান মোঃ হাবিবুর রহমান  অতিরিক্ত আইজিপি হলেন লক্ষ্মীপুরের কৃতী সন্তান মোহাম্মদ ইব্রাহীম ফাতেমী  লক্ষ্মীপুরে বঙ্গবন্ধু জাতীয় যুব দিবস পালিত  সকলের সহযোগিতা নিয়ে কাজ করতে চাই -মোহাম্মদ মাসুম, ইউএনও, লক্ষ্মীপুর সদর উপজেলা  ফেনী জেলা পরিষদ শিশু পার্ক থেকে বিমুখ স্থানীয়রা 

মুজিববর্ষে লক্ষ্মীপুরে জমিসহ ঘর পেলো ২’শ পরিবার

বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী উপলক্ষে লক্ষ্মীপুরে ২’শ ভূমিহীন ও গৃহহীন পরিবারকে ঘর হস্তান্তর করা হয়েছে। ২৩ জানুয়ারি সদর উপজেলা অডিটোরিয়ামে উপকারভোগীদের ঘরগুলো বুঝিয়ে দেয়া হয়।
সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোহাম্মদ মাসুম এর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন জেলা প্রশাসক মোঃ আনোয়ার হোছাইন আকন্দ। বিশেষ অতিথি ছিলেন পুলিশ সুপার ড. এএইচএম কামরুজ্জামান, জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মোহাম্মদ শাহজাহান, জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি গোলাম ফারুক পিংকু, সাধারণ সম্পাদক এড. নুর উদ্দিন চৌধুরী নয়ন, সদর উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান একেএম সালাহ উদ্দিন টিপু।
এ সময় আরও উপস্থিত ছিলেন- লক্ষ্মীপুর জেলা সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোটের সভাপতি জাকির হোসেন ভূঁইয়া আজাদসহ সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তা-কর্মচারীরা। এর আগে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে উপকারভোগী পরিবারের কাছে গৃহ হস্তান্তর কার্যক্রমের উদ্বোধন করেন।
জেলা প্রশাসকের কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে, দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়ের অর্থায়নে আশ্রয়ন প্রকল্প-২ এর আওতায় গৃহহীন ও ভূমিহীন পরিবার পূনর্বাসন কার্যক্রমের অংশ হিসেবে জেলার ৪টি উপজেলায় ২’শ পরিবার ঘর পেয়েছে। এর মধ্যে সদর উপজেলায় ৬৫, রামগতিতে ৯০, রায়পুরে ২৫ ও কমলনগরে ২০টি। এছাড়া সদর উপজেলা চরমেঘায় আশ্রয়ন প্রকল্প জান্নাতুল মাওয়ায় ২৪টি ব্যারাকের ১২০টি গৃহ হস্তান্তর করা হয়েছে।
আধাপাকা প্রতিটি গৃহ নির্মাণে বরাদ্দ ধরা হয়েছে ১ লাখ ৭১ হাজার টাকা। প্রতিটি ঘরের ধরন একই। সেখানে আছে- দুটি শোবারঘর, একটি টয়লেট, রান্নাঘর, কমনস্পেস ও একটি বারান্দা। এসব ঘর প্রত্যেক পরিবারের জন্য আলাদা করে নির্মাণ করা হয়েছে।
উল্লেখ্য, মুজিব শতবর্ষ উপলক্ষে গুচ্ছগ্রাম দ্বিতীয় পর্যায় (সিডিআরপি) প্রকল্পের আওতায় লক্ষ্মীপুরে দুই ধাপে ২ হাজার ৩৬টি ভূমিহীন ও গৃহহীন পরিবারকে জমি ও গৃহ প্রদানের লক্ষ্যে কর্মযজ্ঞ শুরু হয়েছে। প্রথম ধাপে লক্ষ্মীপুরের চার উপজেলায় ‘ক’ শ্রেণির (ভূমি ও গৃহহীন) ৩১০টি অসহায় পরিবারের মধ্যে এসব ঘর হস্তান্তরের কথা ছিল। কিন্তু কাজ শেষ না হওয়ায় বর্তমানে ২’শ পরিবারের মাঝে এসব গৃহ হস্তান্তর করা হয়েছে।